মানুষের মাঝে আল্লাহভীতি সৃষ্টি হলে দেশে শান্তি ফিরে আসবে: পীর সাহেব চরমোনাই

প্রকাশিত: ১১:৫৩ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০১৯
শুরু হলো চরমোনাই মাহফিলের তৃতীয় দিন

মঙ্গলবার বাদ জোহর আমীরুল মুজাহিদীন মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম, পীর সাহেব হুজুর চরমোনাইর উদ্বোধনী বয়ান ও লাখো মুসল্লীদের রোনাজারির মধ্য দিয়ে বিশ্বের অন্যতম ইসলামী মহাসম্মেলন চরমোনাইর বার্ষিক মাহফিল শুরু হলো। উদ্বোধনী বয়ানে পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, চরমোনাইর এই লক্ষ লক্ষ মানুষের জমায়েত দুনিয়াবি কোনো স্বার্থোদ্ধারের জন্য নয় বরং আল্লাহর পরিচয় লাভ করে দুনিয়া ও আখিরাতে মুক্তি লাভের জন্য। সুতরাং আমরা মনে করি চরমোনাইতে কেউ দুনিয়া কামাই করার জন্য আসেননি। তিনি বলেন, দুনিয়ার ক্ষমতা ও রাজত্ব ক্ষণস্থায়ী। সুতরাং দুনিয়ার ক্ষণস্থায়ী ক্ষমতা পেয়ে মহাবিশ্বের একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী মহান আল্লাহকে ভুলে যাওয়া যাবে না।

 

যারা এমনটি করেন, তারা দুনিয়া ও আখিরাত উভয় জগতেই লাঞ্ছিত হবেন। অন্যদিকে মানুষের মাঝে আল্লাহভীতি সৃষ্টি হলে সবাই সম্মানিত হবে। পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, দেশের মানুষ যদি আল্লাহভীরু তাকওয়াবান হয়ে যায়, তবে দেশের সর্বস্তরে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত হবে। এদিকে মাহফিলে আগত এক মুসল্লির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। চরমোনাই মাহফিলে আগত মুসল্লীদের স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার জন্য ১০০ শয্যাবিশিষ্ট অস্থায়ী মাহফিল হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে। এখানে সার্বক্ষণিক চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে মাহফিলে আসা সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া থানার জয়নাল আবেদীন (৬৫) গতরাত ৮.৩০টায় স্ট্রোক করে তাৎক্ষণিক মৃত্যুবরণ করেন। আজ বাদ ফজর জানাজা শেষে স্বজনদের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়।

 

উল্লেখ্য, চরমোনাই মাহফিলের দ্বিতীয় দিন বুধবার সকাল ১০টায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ-এর সিনিয়র মুহাদ্দিসগণ ও দেশের শীর্ষস্থানীয় ওলামায়ে কিরামগণ উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। তৃতীয় দিন বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের শ্রমিক সম্মেলন ও বেলা ১১টায় ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর ছাত্রগণজমায়েত অনুষ্ঠিত হবে। শুক্রবার সকাল ৮টায় আখেরী মুনাজাতের মাধ্যমে মাহফিলের কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে সমাপ্ত হবে।