ভারতে সরকারের করোনা তহবিলে এক মাসের ভাতা দান করলেন দৃষ্টিহীন মুসলিম তরুণী

প্রকাশিত: ২:০৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০২০

ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্য সরকার করোনা আক্রান্তদের সাহায্যার্থে যে তহবিল খুলেছে সেখানে পুরো এক মাসের ভাতা দান করলেন এক মুসলিম তরুণী। তার নাম সাবিনা সইফি।

কিন্তু সাবিনা কোনও স্বাভাবিক মানুষ নন, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন তরুণী। অন্ধ হওয়ার কারণে তিনি সরকারের কাছ থেকে প্রতি মাসে ৫ হাজার টাকা করে ভাতা পান। সেই টাকাই মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিলে দান করলেন সাবিনা।

রাজ্যের একটা সূত্রের বরাত দিয়ে সোমবার এ খবর জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি।

তাঁর এই কীর্তির একটা ভিডিও প্রকাশ্যে এনেছে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার সোয়াদতগঞ্জ শাখার ব্রাঞ্চ ম্যানেজারের হাতে সেই চেক তুলে দিচ্ছেন সাবিনা। পাশাপাশি দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিতেও দেখা গিয়েছে ওই তরুণীকে।

সেই ভিডিওতে ব্যাঙ্কের সেই শাখার ম্যানেজার বীরেন্দ্র কুমার বলেছেন, “আজ ২৭ এপ্রিল, ২০২০-তে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন সাবিনা সইফি নিজের পেনশনের ৫ হাজার টাকা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করলেন। অত্যন্ত গরিব পরিবারের এই মেয়ের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।”

সেই ভিডিওতে সাবিনা বলেছেন, “প্রত্যেক ভারতবাসী আর রাজ্যবাসীর প্রতি আমার নমস্কার। আজ আমার সৌভাগ্য হয়েছে নাগরিক কর্তব্য পালনের। সবার উচিত নাগরিক কর্তব্য পালন করা। কারণ দেশের প্রতি আমাদের সকলের কিছু কর্তব্য থাকে।”

সেই ভিডিওতে সাবিনা স্টেট ব্যাঙ্ক ম্যানেজার বীরেন্দ্র কুমারের প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, “আমি দৃষ্টিহীন। তাই আমার বেরতে অসুবিধা হয়। সেই কারণে উনি ব্যাঙ্ককে আমার কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। আমরা দেশের থেকে শুধু নেব, এই মানসিকতা ছাড়তে হবে। কিছু দিতেও হবে।”

তিনি আরও বলেছেন, “আমাদের সকলের এই সঙ্কটের সময়ে এগিয়ে আসা উচিত। যার যেমন সামর্থ্য, তেমন দান করা উচিত। আমি জানি ৫০০ টাকা বা ৫ হাজার টাকায় কিছুই হবে না। কিন্তু ইচ্ছাটাই আসল। তাই দান করুন, দেখবেন ভালো লাগবে।”

পাশাপাশি মুসলিম সম্প্রদায়কে এগিয়ে এসে নাগরিক কর্তব্য পালনের আবেদন করেন তিনি।

এদিকে, শুধু সাবিনা নয়, এই মহৎ উদ্দেশে এগিয়ে এসেছেন আকাশ নামে তাঁর এক সহযোগী। তিনিও নিজের সামর্থ্য মতো ৫০০ টাকা ওই ব্যাঙ্ককর্তার হাতে তুলে দিয়েছেন।